Politics

[Politics][bleft]

West Bengal

[West Bengal][grids]

World

[World][bsummary]

National

[National][twocolumns]

ওষুধে শতভাগ সাফল্য, মলদ্বার ক্যানসারের সব রোগী নিরাময়


নয়াদিল্লি বিজ্ঞানীদের একটি দল রেকটাল ক্যান্সারের জন্য একটি ওষুধ তৈরিতে কাজ করছেন। এরই মধ্যে এমন একটি ওষুধের  কথা জানতে পারে দলটি, যা চিকিৎসা বিজ্ঞানের ইতিহাসে এক অলৌকিক ঘটনা।বিজ্ঞানীরা এমন একটি ওষুধ আবিষ্কার করেছেন যা সম্পূর্ণরূপে ক্যান্সারকে মূল থেকে নির্মূল করে।


বিজ্ঞানীদের দল ১২ জন রোগীর উপর ট্রায়ালের জন্য এই ওষুধটি ব্যবহার করেছিলেন এবং বিজ্ঞানীরাও এর ফলাফল দেখে অবাক হয়েছিলেন। ওষুধের প্রাথমিক পরীক্ষায় এটি সমস্ত রোগীদের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছিল। এই ওষুধ খাওয়ার পর সব রোগীই ক্যান্সার থেকে সুস্থ হয়ে ওঠেন।


ট্রায়ালে অংশগ্রহণকারী সকল রোগী রেকটাল ক্যান্সারের একই পর্যায়ে ছিলেন।ক্যান্সার শরীরের বাকি অংশে ছড়িয়ে পড়েনি।গবেষকরা বিশ্বাস করেছিলেন যে ডস্টারলিম্যাব নামক ওষুধটি ক্যান্সার কোষগুলির বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করবে এবং রোগীদের উপর আরও ভাল কাজ করবে।ওষুধটিও বিজ্ঞানীদের প্রত্যাশা অনুযায়ী প্রভাব দেখিয়েছে।

৬ মাস ধরে ওষুধ দেওয়া হয়।


বিজ্ঞানীরা ৬ মাস ধরে সমস্ত রোগীদের ওষুধ ডস্টারলিমাব পরিচালনা করেছিলেন। ক্যান্সার রোগীরা প্রতি তিন সপ্তাহে ওষুধটি গ্রহণ করেন। এই চক্রটি ৬ মাস ধরে চলতে থাকে।এরপর বিজ্ঞানীরা দেখলেন, কোনো রোগীর মধ্যে ক্যান্সারের কোনো লক্ষণই দেখা যাচ্ছে না। তদন্তে সব রোগীই এই রোগ থেকে সম্পূর্ণ নিরাপদ জানা গেছে।বিজ্ঞানীরা এই ফলাফলগুলি দেখে হতবাক এবং তাদের খুশির সীমা নেই।ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি গ্ল্যাক্সোস্মিথক্লাইন ওষুধ ডস্টারলিম্যাব নিয়ে গবেষণা করতে সাহায্য করেছে।

ফলাফল দেখে চমকে গেছেন চিকিৎসকরাও।


মেমোরিয়াল স্লোন কেটারিং ক্যান্সার সেন্টারের বিজ্ঞানী ড. লুইস এ. গিয়াজ জুনিয়র (ড. লুইস এ. ডিয়াজ জুনিয়র) নিউ ইয়র্ক টাইমসকে বলেছেন যে, ক্যান্সার চিকিৎসার ইতিহাসে এটিই প্রথম। তিনি স্টেট নিউজকে বলেন, এটা একটা বড় অর্জন। এই প্রথম কঠিন টিউমার অনকোলজিতে ১০০% সাফল্য অর্জিত হয়েছে। ডাক্তার বলেছেন আমরা স্বাভাবিক পরিচর্যা বন্ধ করে দিয়েছি।


এই গবেষণার ফলাফলে বিজ্ঞানীদের পুরো দল খুশি।মেমোরিয়াল স্লোন কেটারিং ক্যান্সার সেন্টারের একজন ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ ডাঃ আন্দ্রেয়া সার্সেক টাইমসকে বলেন যে, এই গবেষণার ফলাফল সেই সময়েই বেরিয়ে এসেছে। সবার চোখে আনন্দের অশ্রু।


সাধারণভাবে রেকটাল ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীকে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। রেকটাল ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীদের কেমোথেরাপি, রেডিয়েশন এবং সার্জারির মতো চিকিৎসা করা হয়।তাদের প্রায়ই একটি কোলোস্টমি ব্যাগ প্রয়োজন হয়। তাদের অন্ত্র, প্রস্রাব এবং ইলেকটিভের মতো সমস্যা মোকাবিলা করতে হয়। কিন্তু ওষুধের পরীক্ষায় আরও ভালো ফল পাওয়া গেছে। এখন ওই ১২ জন রোগীর কোনো ধরনের চিকিৎসার প্রয়োজন নেই। তারা সম্পূর্ণ ভালো আছেন।


এই গবেষণার ফলাফল পর্যালোচনা করে গবেষকরা বলছেন, এই ওষুধটি আশার আলো। এর ফলাফল দেখতে আরও বড় পরীক্ষার প্রয়োজন। এটাও দেখতে হবে যে এটি রোগীদেরকে বড়ভাবে প্রভাবিত করে এবং ক্যান্সার রোগ থেকে মুক্তি দেয় কিনা।


ক্যান্সার রোগীদের পরিবারও এই পরীক্ষার ফলাফলে বিস্মিত। একজন রোগী তার পরিবারকে বলেছিলেন যে তিনি ক্যান্সার থেকে সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠেছেন। তাই তাকে বিশ্বাস করতে পারছিলেন না পরিবারের সদস্যরা। 

প্র ভ

No comments: