Politics

[Politics][bleft]

West Bengal

[West Bengal][grids]

World

[World][bsummary]

National

[National][twocolumns]

প্রোটিন পাউডার কি শিশুদের জন্য নিরাপদ?


যেসব শিশু তাদের খাদ্য সঠিকভাবে গ্রহণ করে, তাদের প্রোটিন পাউডার গ্রহণের প্রয়োজন নেই, এমন হতে পারে যে শিশুদের শরীরে প্রোটিনের অভাব রয়েছে, তবে শুধুমাত্র সেই শিশুদের প্রোটিন পাউডার খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়, যাদের খাদ্যের মাধ্যমে প্রোটিন দেওয়া হয় না। যেসব শিশুরা গিয়ে বা খেয়ে প্রোটিন পাচ্ছে না।  শিশুরা প্রয়োজনের তুলনায় বেশি প্রোটিন গ্রহণ করলে তাদের স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটতে পারে, তাই চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া তাদের প্রোটিন পাউডার দেবেন না, পাশাপাশি শিশুকে ঘরে তৈরি প্রোটিন পাউডার দিলে বাজারের প্রোটিন পাউডার নষ্ট হয়ে যায়। শিশুদের স্বাস্থ্য করতে পারে।


 


 শিশুদের জন্য প্রোটিন পাউডারের উপকারিতা


 চিকিৎসকের পরামর্শে দুধে প্রোটিন পাউডার যোগ করে যেসব শিশুকে পান করার পরামর্শ দেন চিকিৎসকের পরামর্শে প্রোটিন পাউডার দিতে পারেন।


 যেসব শিশুর ওজন কম অর্থাৎ যেসব শিশুর ওজন কম, চিকিৎসকরা তাদের প্রোটিন পাউডার খাওয়ার পরামর্শ দেন।


 মেটাবলিক সিনড্রোমের কারণে বা যেসব শিশু নিরামিষ খাবার খায়, তাদেরও চিকিৎসক প্রোটিন পাউডার খাওয়ার পরামর্শ দেন।


 শিশুদের জন্য প্রোটিন পাউডারের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া


 


প্রোটিন পাউডার অতিরিক্ত ব্যবহারে শিশুদের শরীরে কিডনিতে পাথর হতে পারে।  প্রোটিন পাউডারে এমন অনেক উপাদান রয়েছে যা শিশুদের শরীরের জন্য ক্ষতিকর।  এছাড়াও অনেক প্রোটিন পাউডার রয়েছে যার মধ্যে ক্রিয়েটাইন যৌগ থাকে যা শিশুদের ওজন বাড়াতে পারে।  এছাড়াও বাজারে পাওয়া প্রোটিন পাউডারে প্রচুর পরিমাণে চিনি থাকে, যদি শিশুরা এটি প্রতিদিন পান করে তবে তাদের ওজনও বাড়তে পারে।  অত্যধিক প্রোটিন গ্রহণের ফলে শিশুদের শরীরে পুষ্টির অভাব হতে পারে।  শিশুদের যদি বেশি প্রোটিন পাউডার দেওয়া হয়, তাহলে তাদের পেট সংক্রান্ত অভিযোগ যেমন ডায়রিয়া, পেটে ব্যথা, কোষ্ঠকাঠিন্যের অভিযোগ, পেটে গ্যাসের অভিযোগ হতে পারে।  অনেক শিশুর প্রোটিন পাউডার খাওয়ার ফলে ল্যাকটোজ অসহিষ্ণুতার সমস্যা হতে পারে।


 

 শিশুদের জন্য প্রোটিন পাউডার ব্যবহার করার সময় কী কী বিষয় মাথায় রাখতে হবে?  


এক বছরের কম বয়সী শিশুদের প্রোটিন পাউডার দেবেন না।


 যেসব বাচ্চাদের ডাক্তাররা প্রোটিন পাউডার দেওয়ার পরামর্শ দেন, সকালের নাস্তায় দুধের সঙ্গে প্রোটিন পাউডার মিশিয়ে খেতে পারেন।


 যেসব শিশু খেলাধুলা বা অন্যান্য কাজে যুক্ত থাকার কারণে বেশি ক্যালরি পোড়ায়, তাদেরও বেশি প্রোটিন প্রয়োজন।


 শিশুর বয়স 14 থেকে 18 বছর হলে তাকে দিনে 50 থেকে 52 গ্রাম প্রোটিন পাউডার দেওয়া যেতে পারে।


 কোনো মেয়ের বয়স 14 থেকে 18 বছর হলে তাকে দিনে 43 থেকে 46 গ্রাম প্রোটিন পাউডার দেওয়া যেতে পারে।


 9 থেকে 13 বছর বয়সী শিশুদের প্রতিদিন 30 থেকে 34 গ্রাম প্রোটিন পাউডার দেওয়া যেতে পারে।


 শিশুর বয়স 4 থেকে 8 বছরের মধ্যে হলে প্রতিদিন 15 থেকে 19 গ্রাম প্রোটিন পাউডার দেওয়া যেতে পারে।


 যদি শিশুর বয়স 1 থেকে 3 বছর হয়, তবে তাকে দিনে 14 গ্রামের বেশি প্রোটিন পাউডার দেবেন না।


 শিশুকে শুধুমাত্র সেই প্রোটিন পাউডার দিন যা ডাক্তারের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে কারণ বাজারে পাওয়া প্রোটিন পাউডারে প্রোটিন বা চিনি যুক্ত হতে পারে, যা শিশুর স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটাতে পারে, তাই ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

No comments: